জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম ২০২১

bdric সফটওয়্যার দিয়ে এখন খুব সহজে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধনের সংশোধন আবেদন করা যাবে।আগে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার জন্য অনেক ঝামেলা পোহাতে হত।এই ঝামেলার অবসান ঘটিয়েছে bdric এর আপডেট সফটওয়্যার।এছাড়াও পরিষদের কম্পিউটার অপারেটরের কাছ থেকে অনেক হেনস্থা এবং অর্থদণ্ডীর শিকার হতে হয়।আজকের এই আর্টিকেলে আপনি জানতে পারবেন কিভাবে কোন রকম সমস্যা ছাড়া অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করাবেন।

সরাসরি লিঙ্কে ক্লিক করে আবেদন করুনঃ-সংশোধন আবেদন

ধাপ-১

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার জন্য প্রথমে আপনার ব্রাউজারে গিয়ে একটি ট্যাব ওপেণ করে নিতে হবে। তাতে bdric ডট কম লিখে গুগলে সার্চ দিবেন।এরপর আপনার কাছে bdric এর ড্যাশবোর্ড ওপেন হয়ে যাবে।ন্যাভিগেশন বার জন্ম নিবন্ধন থেকে সাব ন্যাভিগেশন বারে জন্ম নিবন্ধন তথ্য সংশোধনে ক্লিক করবেন।

আরও জানুনঃ

মেসেঞ্জার রুম ব্যাবহার করার নিয়ম-টেকনো এক্সট্রা

সি প্রোগ্রামিং এর কাজ কী?সি এর ইতিহাস ও বৈশিষ্ট-টেকনো এক্সট্রা

ধাপ-২

এরপর আপনি যে ব্যাক্তির তথ্য সংশোধন করতে চান তার জন্ম নিবন্ধন নাম্বার এবং তার জন্মসাল দিয়ে দিতে হবে।এর আগে উপরে কিছু শর্ত দেওয়া আছে সেটা পড়ে নিবেন।জন্ম সালের আইডি নাম্বার দেওয়ার পর আপনার কাছে একটি টেবিল ওপেন হয়ে যাবে।ওই টেবিলে সংশোধনকারী ব্যাক্তির ইনফরমেশন দেখা যাবে।

এরপর ডাণ পাশে একটি টিক মার্ক দেখা যাবে সেখান থেকে “নির্বাচন করুন” লেখার উপর ক্লিক করে নিবেন।এরপর একটি পপ আপ ম্যাসেজ আসবে সেখানে কনফার্মে ক্লিক করে নিবেন।আপনার কাছে একটি নতুন পেজ চলে আসবে সেখান থেকে আপনাকে দেশ,বিভাগ,জিলা,থানা এবং ইউনিয়ন সিলেক্ট করে ডানপাশে পরবর্তী বাটনে ক্লিক করে নিটে হবে।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম

ধাপ-৩

পরবর্তী বাটনে ক্লিক করার সাথে সাথে নতুন আরেকটি পেজ ওপেন হবে।সেই পেজ থেকে আপানকে জন্মনিবন্ধন ভুল সংশোধন করতে হবে।সেখান থেকে আপানকে নির্বচন করতে হবে আপনি কি সংশোধন করতে চান।
নামের প্রথম অংশ,শেষ অংশ নাকি মাঝের অংশ এবং ইংরেজি করতে চাইলে সেটাও করা যাবে।এক সাথে ২ টি সিলেক্ট করতে চাইলে সেজন্য ২ টি সিলেক্ট করে নিতে হবে।

এরপর আবেদনকারী ব্যক্তির স্থায়ী ঠিকানা ও বর্তমান ঠিকানা হিসেবে দেশ,বিভাগ,ইউনিয়ন এবং গ্রাম বাংলায় এবং ইংরেজিতে দিয়ে দিতে হবে।

ধাপ-৪

এরপর কে আবেদন করতেছে তার ইনফরমেশন দিয়ে দিতে হবে সেক্ষেত্রে আবেদনকারী ব্যাক্তির যদি ১৮ বছর হয় তাহলে সে নিজেই তার ইনফরমেশন দিয়ে আবেদন করতে পারবে।আর যদি আবেদনকারীর ১৮ বছর না হয় তাহলে তার বাবা,মা,ভাই অথবা বোন সেই ইনফরমেশন দিয়ে পরিপূর্ণ করে নিতে পারবে।এরপর আবেদনকারীর সম্পর্কিত ব্যক্তির নাম,ঠিকানা এবং মোবাইল নাম্বার দিতে হবে।সবশেষে তার জন্মনিবন্ধন অথবা আইডি কার্ডের ফটো তুলে ফাইল হিসেবে সংযুক্ত করতে হবে।

আরও জানুনঃ

Quora কি?Quora ব্যাবহারে সুবিধা কি কি?-টেকনো এক্সট্রা

গুগল মিট বনাম জুম কোন অ্যাপটি সেরা?

পরিশেষঃ

সবশেষে আপনি পেমেন্ট অপশন দেখতে পাবেন সেখান থেকে আপনাকে পেমেন্ট সিলেক্ট করতে হবে।আপনি যদি বিকাশে টাকা দিতে চান তাহলে সেটা ও পারবেন।আপনি যদি চালানের মাধ্যমে টাকা দিতে চান তাহলে সেটা ও দিতে পারবেন।আপনি বিকাশ সিলেক্ট করে পরবর্তী বাটনে ক্লিক করবেন।

সাকশেসফুল্লি আপনার ইনফরমেশন যুক্ত করা হয়েছে এরকম একটি নটিফিকেশন পাবেন।নিচে আবেদনপত্রটি প্রিন্ট করে নিয়ে ১৫ কার্জদিবশের মধ্যে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ অথবা উপজিলা থেকে সিগনেচার করে সেটা জমা দিয়ে আসবেন।

আরও জানুনঃ

জানুন গুগলের সেরা ৭ টি প্রোডাক্ট কি কি?

উপায় অ্যাপ এমবি ছারাই চলবে গ্রামীনফোনে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button